রৌমারীতে এক হলুদ সাংবাদিকের জ্বালা- যন্ত্রণায় অতিষ্ট এলাকাবাসী

রৌমারীতে এক হলুদ সাংবাদিকের জ্বালা- যন্ত্রণায় অতিষ্ট এলাকাবাসী

রাজীবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সাখাওয়াত হোসেন সাখা নামের এক হলুদ সাংবাদিকের যন্ত্রণায় অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী। ইফটিজিং, চাদাবাজি, হুমকি, বাল্যবিয়ের বিয়ের বাড়ি থেকে টাকা উত্তোলন, স্কুল কলেজসহ নানা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে হয়রানী ও সীমান্ত এলাকায় বিজিবি’র ভুয়া সংবাদ প্রকাশ করে অপকর্মের চুড়ায় অবস্থান এখন তার। সম্প্রতি দাঁতভাঙ্গা দ্বিমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলামের নিটক চাদা দাবি করলে চাদা দিতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। এছাড়াও  ওই স্কুলের এক কিশোরীর সাথে ইফটিজিং করলে সাখার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ওই প্রধান শিক্ষক। ফলে তার বিরুদ্ধে গত ৬ জুন একটি ভুয়া টিন চুরির সংবাদ প্রকাশ করেন সাখা।
বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়, সম্প্রতি হলুদ সাংবাদিক সাখাওয়াত হোসেন সাখার দৌরাত্ব ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে গোটা রৌমারী উপজেলায়। হলুদ সাংবাদিক সাখা প্রতি দিন সকাল থেকে মধ্য রাত অবধি সাংবাদিকতার পরিচয়ে ঘাড়ে ক্যামেরা, গলায় আইডি কার্ড ও দামি বাইক চেপে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে উপজেলার এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত।
হলুদ সাংবাদিক সাখা কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পেলেই হানা দেয় তার দপ্তর বা প্রতিষ্ঠানে। এমনকি বাড়ি বাড়ি গিয়ে হাজির হয় ওই হলুদ সাংবাদিক। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রধান শিক্ষক কে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা নিচ্ছে মাসের পর মাস।
হলুদ সাংবাদিক সাখা আবার গলায় কার্ড ঝুলিয়ে দালালির পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় বাল্য বিবাহ বন্ধ করার জন্য হাজির হয় কনের বাড়ী। কনের পরিবার কে ভয়ভীতি দেখিয়ে হাতিয়ে নেয় হাজার হাজার টাকা।
মোটকথা হলুদ সাংবাদিক সাখার ভয়ে সম্মানি ব্যক্তিরাও রয়েছেন আতংকে। সাখার  সিন্ডিকেটের মাধ্যমে যেকোন সম্মানি ব্যক্তির সম্মানহানির চেষ্টা করেন। এমনকি কোথাও কোন ঘটনা ঘটলে হলুদ সাংবাদিক নিজেই বানোয়াট অভিযোগ পত্র লিখে হানা দেন অভিযুক্তর বাড়িতে।
হলুদ সাংবাদিক সাখার অপতৎপরতায় মূল পেশাজীবিরাই আজ কোন-ঠাঁসা হয়ে পড়েছেন। সাখার লেখালেখিতে কোন প্রকার ধারণা না থাকলেও উপজেলার কতিপয় সাংবাদিক নামধারী সাংঘাতিকদের কাছ থেকে নিয়মিত ছি.ছি নিয়ে সংবাদ মাধ্যমগুলো টিকিয়ে রেখেছেন।
 হলুদ সাংবাদিক সাখার মতো জানা অজানা অনেকেই রয়েছেন যারা কাক ডাকা ভোরে বেরিয়ে মধ্য রাত অবধি দাপিয়ে বেড়ান মফস্বলের তৃণমূল পর্যন্ত। এলাকার প্রকৃত সাংবাদিক থেকে শুরু করে তাদের দ্বারা নির্যাতিতরা হলুদ সাংবাদিক সাখার হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে স্থানীয় প্রশাসন, সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও তাদের স্ব স্ব পত্রিকা ও অনলাইন পোর্টাল মালিকদের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536