দেশের বিভিন্ন এলাকায় পালিত হচ্ছে ঈদুল আজহা

দেশের বিভিন্ন এলাকায় পালিত হচ্ছে ঈদুল আজহা

অনলাইন ডেস্ক:সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ রোববার সকালে শেরপুরের নকলা উপজেলার চরকৈয়া গ্রামের প্রায় ২০০ মুসল্লি ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেন। ছবি: দেবাশীষ সাহা রায়, প্রতিনিধি, শেরপুর।জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার ১৩টি গ্রামে, সুনামগঞ্জের ধরমপাশা উপজেলায়, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আটটি গ্রামে, পটুয়াখালীর ২২টি গ্রামে, মৌলভীবাজারে ও শেরপুরের ছয়টি গ্রামে আজ রোববার পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হচ্ছে।

ধরমপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামে আজ সকাল নয়টার দিকে ঈদুল আজহার প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

শরীয়তপুর জেলার সোরেশ্বর দরবার শরিফের ধরমপাশা উপজেলার ভক্তরা ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামে স্থানীয় খানকায় সমবেত হয়ে নামাজ আদায় করেন। উপজেলার সৈয়দপুর, আহম্মদপুর, মোদাহরপুর, দশধরী, রাজনগর, দাসপাড়া, রাধানগর, কান্দাপাড়া, ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের অর্ধশতাধিক ভক্তরা নামাজে অংশ নেন। ঈদের নামাজ পড়ান স্থানীয় খানকার খতিব বাবুল মিয়া। সাত বছর ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে তাঁরা নামাজ আদায় করে আসছেন।

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ মাঠের ইমাম মাওলানা আজিম উদ্দিন বলেন, ‘আমার পেছনে ১৩টি গ্রামের পাঁচ শতাধিক মুসল্লি ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছেন।’

দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ মাঠে প্রতিবছরের মতো এ বছরও মুলবাড়ি, বলারদিয়ার, সাতপোয়া, সাঞ্চারপাড়, পঞ্চপীর, পাখাডুবি, বালিয়া, বনগ্রাম, হোসনাবাদ ও বাউসী, পুঠিয়ারপাড়, বগারপাড়, পাটাবুগা ১৩টি গ্রামের পাঁচ শতাধিক মানুষ ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন। অন্যদিকে, মহাদান ইউনিয়নের বনগ্রাম ও উচ্চ গ্রামে ঈদুল আজহার আরও দুটি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বলারদিয়ার গ্রামের শাহা আলী (৬১) বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে আমরা ১৫ বছর ধরে ঈদুল আজহার নামাজ পড়ে আসছি।’

মৌলভীবাজারে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহার নামাজ পড়েছেন শতাধিক পরিবারের মুসল্লি। আজ রোববার সকাল সাড়ে সাতটায় মৌলভীবাজার শহরের সার্কিট হাউস এলাকার আহমেদ শাবিস্তা নামক বাসার ছাদে এই ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে ইমামতি করেন আলহাজ আব্দুল মাওফিক চৌধুরী।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কুশখালী ইউনিয়নের বাউখোলা দক্ষিণপাড়ায় ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ রোববার সকাল সাড়ে সাতটায় অনুষ্ঠিত এ নামাজে মাওলানা মহব্বত আলী ইমামতি করেন। জামায়াতে বাউখোলা, সাতানি, ভাদড়া, নলতা, খুলনার ডুমুরিয়া, পাইকগাছাসহ পাঁচ গ্রামের শতাধিক মানুষ নামাজ আদায় করেন। মাওলানা মহব্বত আলী জানান, তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে যুগ যুগ ধরে ঈদের নামাজ আদায় করে আসছেন।

কুশখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, নামাজ শেষে স্থানীয় কয়েকটি পরিবার কোরবানিও দিয়েছেন।

পটুয়াখালীর ২২টি গ্রামের পাঁচ হাজারেরও বেশি পরিবার আজ রোববার ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করছে। প্রতিবছরের মতো এবারও সৌদি আরবের সঙ্গে সংহতি রেখে এ পরিবারগুলো ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করছেন।

পটুয়াখালীর সদর উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের বদরপুর দরবার শরিফ জামে মসজিদে সকাল নয়টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বদরপুর দরবার শরিফে প্রধান ঈদের জামাতের ইমামতি করেছেন দরবার শরিফের ইমাম মাওলানা শফিকুল ইসলাম গনি। নামাজ শেষে দেশ ও জাতি এবং বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। পরে পশু কোরবানি হতে দেখা গেছে। ১৯২৮ সাল থেকে প্রতিবছর তারা আগাম রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করে আসছেন।

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ রোববার শেরপুরের ছয়টি গ্রামে ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হচ্ছে। এসব গ্রাম হলো শেরপুর সদর উপজেলার চরখারচর পূর্বপাড়া ও পশ্চিমপাড়া, নকলা উপজেলার চরকৈয়া ও নারায়ণখোলা, ঝিনাইগাতী উপজেলার চতল এবং নালিতাবাড়ী উপজেলার নন্নী মধ্যপাড়া। এ ছয়টি গ্রামের প্রায় দুই হাজার মানুষ আজ সকাল আটটা থেকে বেলা ১১টার মধ্যে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

শেরপুর সদর উপজেলার বেতমারী-ঘুঘুরাকান্দি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, চরখারচর পূর্ব ও পশ্চিমপাড়া ঈদগাহ মাঠে প্রায় এক হাজার মানুষ ঈদের নামাজ আদায় করেন। এসব গ্রামের মানুষ ৪৪ বছর ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উদ্‌যাপন করে আসছেন। তাঁরা ফরিদপুরের সুরেশ্বর পিরের অনুসারী বলে তিনি জানান।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অারিফুজ্জামান অারিফ, বিশেষ প্রতিনিধি 
বাহ্মণবাড়িয়া:
গ্রীন ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র আয়োজনে সরাইল সরকারি কলেজ প্রাঙ্গনে বিনামূল্যে গাছ বিতরণ অনুষ্ঠান এবং মোটিভেশনাল প্রোগ্রাম সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ঢাকা মহানগর শিক্ষা কমিটির সদস্য আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা রুম টু রিড এর আফজালুর রহমান রিপন এর বক্তব্য ও প্রাঞ্জল উপস্থাপনা অনুষ্ঠানে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে।
প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সরাইল সরকারি কলেজের প্রিন্সিপাল শিক্ষাবিদ মৃধা আহমাদুল কামাল।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পিস ভিশন বাংলাদেণ এর সভাপতি, সরাইলের কৃতি সন্তান এড. শেখ জাহাঙ্গীর, সাধারন সম্পাদক,বিশিষ্ট সংগঠক, তিতাস বার্তার উপদেষ্টা শরীফ আহমেদ খান, সরাইল সরকারি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শহিদুল ইসলাম মামুন।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা শরিফ সিদ্দিক, বিশিষ্ট সংগঠক, এডমিন প্রাউড ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পরিচালক কোহিনুর আক্তার।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজের মেধাবী ছাত্রী ও সংগঠক তাছলিমা নাছরিন, লস্কর পাপিয়া জান্নাত প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
“নিজে বাঁচি পরিবেশ বাচাঁই
চলো সবাই সবাই গাছ লাগাই”
এই শ্লোগান কে সামনে রেখে এ সংগঠনের উপজেলা পর্যায়ের ৮ম প্রোগ্রাম।
গ্রীণ ব্রাহ্মণবাড়িয়া হচ্ছে অনলাইন ও অফলাইন ভিত্তিক সেবামূলক, অব্যাবসায়িক ফেইসবুকভিত্তিক সংগঠন। যার মাধ্যমে বিনামূল্যে গাছ শেয়ারিং ও কেয়ারিং করে থাকে।

সংগঠনটি সরাইল সরকারি কলেজে ফুলের গাছ রোপনসহ ত্রিশজন শিক্ষার্থীকে বিনামূলে গাছ প্রদান করেছে।

গ্রীন ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র আয়োজনে সরাইল সরকারি কলেজ প্রাঙ্গনে বিনামূল্যে গাছ বিতরণ অনুষ্ঠান

themesbazartvsite-01713478536