ডুমুরিয়ায় চিংড়ি মাছের দাম কম, রেনু পোনার দাম বেশি, চিংড়ি চাষীরা হতাশাগ্রস্থ।

ডুমুরিয়ায় চিংড়ি মাছের দাম কম, রেনু পোনার দাম বেশি, চিংড়ি চাষীরা হতাশাগ্রস্থ।

শেখ মাহতাব হোসেন ডুমুরিয়া খুলনা:খুলনার ডুমুরিয়ায় গলদা ও বাগদা পোনা সংকট, দাম বৃদ্ধি ও হিমায়িত বাগদা বিক্রি দাম কম হওয়ায় চিংড়ি চাষীরা হতাশায় ভুগছেন। মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে বিদেশে রপ্তানি বন্ধ থাকায় চাষিরা দায় দেনায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন আশি’র দশক থেকে চিংড়ী চাষ হয়ে আসছে। যা দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করে সরকার প্রতি বছর কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে। চলতি বছর রপ্তানি বন্ধ থাকায় অধিকাংশ কোম্পানি চিংড়ী বেচা কেনা বন্ধ করে দিয়েছে বলে মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। চিংড়ী চাষের এ ভরা মৌসুমে প্রতি কেজি চিংড়ি ৪ থেকে ৫শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিগত বছরে যা ১ হাজার থেকে দেড় হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। চিংড়ী চাষীরা প্রতি বিঘা জমির হারি নেয় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকায়। চলতি বছরে করোনা ভাইরাসের কারণে শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। বিগত বছরের তুলনায় ডুমুরিয়ায় চলতি বছর তুলনায় সরবরাহ ৮০% কম বলে জানান খুলনা বিভাগীয় চিংড়ি পোনা ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও গালফ হ্যাচারী মালিক গোলাম কিবরিয়া রিপন। তিনি আরও বলেন, মাদার সংকটের কারণে কোম্পানি চাহিদা অনুযায়ী পোনা উৎপাদন করতে পারছে না। এ কারণে এ বছর পোনার দাম বেশি। খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলা চিংড়ি চাষ অধ্যুষিত এলাকা। ডুমুরিয়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ডুমুরিয়া উপজেলায় ১১,১৪৬ হেক্টর গলদা চিংড়ি চাষ হয় ও ৬,৭৮১ হেক্টর জমিতে বাগদা চিংড়ি চাষ হয়।পরিবহন সংকট, বাড়তি উৎপাদন খরচ ইত্যাদি কারনে চিংড়ি পিএল এর দাম বেশি হওয়ায় ডুমুরিয়া উপজেলার চিংড়ি চাষীরা এবার তাদের ঘেরে পিএল ছাড়তে হিমশিম খাচ্ছেন। চিংড়ি চাষী দিঘুল রায় জানান, এবার বড় বিপদে আছি। সব কিছুর দাম বেশি, রেনুর দাম অন্য বছরের থেকে ৩/৪ গুন বেশি তারপর ও ঠিকমত তা পাওয়া যাচ্ছে না, আর বড় বাগদা দাম অনেক কম। এ ব্যাপারে সরকারের প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ডুমুরিয়া উপজেলা চিংড়ি চাষীরা।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536