৫ম বার বৃদ্ধি মালয়েশিয়া লকডাউন ৯ ই জুন পযন্ত

৫ম বার বৃদ্ধি মালয়েশিয়া লকডাউন ৯ ই জুন পযন্ত

এম এ আবির ,কুয়ালালামপুর মালয়েশিয়া, ইউরোপে যখন কোভিড -১৯ ভাইরাস সংক্রামিত সংখ্যা বাড়ছে তখন মালয়েশিয়া আস্তে আস্তে নিয়ন্ত্রণে দিকে যাচ্ছে। মালয়েশিয়া স্ব্যাস্থ বিভাগ নিবিড় পরিচর্যা ও সঠিক চিকিৎসার সুফল পাচ্ছে মালয়েশিয়া করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীরা । ভাইরাসের সংক্রামন রোধে লকডাউনের মেয়াদ মুভমেন্ট কন্টোল অডার ( MCO) আরো ২৮ দিন বাড়িয়ে আগামী ৯ই জুন পযন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।এই নিয়ে ৫ম বার বৃদ্ধি করা হয়েছে মেয়াদ। উল্লেখ গত ১৮ ই মার্চ থেকে মুভমেন্ট কন্টোল অডার ( MCO) বাড়তে বাড়তে ৪থ বার মেয়দ ছিল ১২ ই এপ্রিল পযন্ত, আজ ৫ম বারের মত মেয়াদ বৃদ্ধি করে ৯ ই জুন করা হয়েছে। রোববার স্থানীয় সময় দুপুর ২ টায় জাতির উদ্দেশ্য এক ভাষনে তিনি এই ঘোষণা দেন। তিনি বলেন আমরা এই অবস্থা ( করোনা ভাইরাস) থেকে উওরণের জন্য লকডাউন সময়সীমা বৃদ্ধি করেছি। সবাই কে ধৈর্য ধারণ করতে হবে তাহলেই আমরা করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সফল হব। আসুন আমরা এই পবিত্র মাহে রমজান মাসে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে প্রাথনা করি যেন মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের কে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি দান করে।
তিনি আরো বলনে আমি জানি আমাদের এই দীর্ঘ ২৮ দিন আপনাদের জন্য খুবই কষ্টকর হবে, কিন্তুু দেশের জনগণের স্বার্থে এবং সবার সুস্বাস্থ্যের জন্য মুভমেন্ট কন্টোল অডার ( MCO) বাড়াতে হচ্ছে। আমরা চাই করোনা ভাইরাস দেশ থেকে পুরোপুরি নির্মূল হোক। ইতিমধ্যে আমরা করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে যথেষ্ট এগিয়ে আছি। এবং আর ও সাফল্যের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। এর মধ্যে শর্ত সাপেক্ষে কিছু কিছু সেক্টর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালু করেছে মালয়েশিয়া।
রিপোর্ট লেখা পযন্ত করোনা ভাইরাসে আজ মৃত্যুর সংখ্যা ০০.০০ জন,মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১০৮ জন, আজকে নতুন করে আক্রান্ত রোগী ৬৭ জন, সর্বমোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬,৬৫৬ জন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫,০২৫ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে ১,৫২৩ জন,সিরিয়াস কন্ডিশনে আছে ১৮ জন।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট:ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলায় করোনাভাইরাস পরীক্ষা এবং লোকজনকে কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দাঙ্গায় জড়িয়েছে হিন্দু ও মুসলমান সম্প্রদায়। এ সময় দোকান, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি করা হয়েছে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে বরা হয়, গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে নতুন করে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে। এর আগে গত রোববার প্রথম উত্তেজনা তৈরি হয়। তখন পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এখন পর্যন্ত মোট ১১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

হুগলির তেলেনিপাড়া এলাকায় কয়েকদিন আগে করোনাভাইরাস পরীক্ষার একটি শিবির করা হয়েছিল। পরীক্ষায় বেশ কয়েকজনের করোনা পজিটিভ আসে এবং ঘটনাচক্রে তারা সবাই মুসলমান।

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সংসদ সদস্য অর্জুন সিং এ ঘটনার একটি ভিডিও পোস্ট করে লেখেন, ‘ক্যাম্পটা মুসলমান প্রধান এলাকায় হয়েছিল, তাই স্বাভাবিকভাবেই পজিটিভ এলে মুসলমানদেরই হবে। কিন্তু সেটা নিয়ে হিন্দুদের একাংশ মুসলমানদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতে থাকে। মুসলমানরাই করোনা ছড়াচ্ছে বলে টিটকিরি দেওয়া হয়।’

কেউ যাতে গুজব ছড়িয়ে অশান্তি না বাড়াতে পারে, এ কারণে ওই অঞ্চলে ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে।

করোনা নিয়ে ভারতে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536