ভারতের কোয়ারেন্টাইনে দুই এমপি

ভারতের কোয়ারেন্টাইনে দুই এমপি

অনলাইন ডেস্ক:ভারতের মুম্বাই ও সৌদি আরব থেকে ওমরাহ পালন শেষে ময়মনসিংহের দুটি আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্যরা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। তারা হলেন- ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন মাদানী এবং ময়মনসিংহ-১১ (ভালুকা) আসনের কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু।

শনিবার (২১ মার্চ) ভারতের মুম্বাই থেকে ফিরেন কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু। তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। এর আগে ৭ মার্চ সৌদি আরব থেকে ওমরাহ পালন শেষে ফিরেন হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন মাদানী। তিনি নিজ এলাকায় আছেন।

এরপর ১৭ তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে তার অবাধ বিচরণ ছিল বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা। ৩ মার্চ সৌদি আরবে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এর পরের সপ্তাহেই বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সব মসজিদে জামাতে নামাজে পড়া বন্ধ ঘোষণা করে দেশটি। এমন প্রেক্ষাপটেই দেশে ফেরেন এমপি মাদানী। পরে ১০ দিনের মাথায় যোগ দেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে। স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভা, কেক কাটা ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি। মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের এসব ছবি ও ভিডিও নিজের ফেসবুক পেজে আপলোড করেন এমপি মাদানী।

এরপর টানা দুই দিন তিনি দুটি স্ট্যাটাস দেন, যেখানে তিনি লেখেন- প্রিয় ত্রিশালবাসী, সরকারের নির্দেশ, করোনাভাইরাসের কারণে যে কোনো ধরনের জমায়েত, অনুষ্ঠান, খেলাধুলার সমাবেশ থেকে বিরত থাকুন। ধন্যবাদ। অপরটিতে লেখেন, আল্লাহ পাকের রহমতে আমি ভালো আছি। ০৭/০৩/২০২০ তারিখে পবিত্র ওমরাহ পালন করে দেশে ফিরে আসি। আমি হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি। দেশ ও জাতির স্বার্থে বিদেশ থেকে আগত সকল ভাইবোনেরা স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে চলে আসুন।

আওয়ামী লীগদলীয় সংসদ সদস্য হাফেজ রুহুল আমিন মাদানীর দেওয়া দুটি ফেসবুক স্ট্যাটাস বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা মোতাবেক তার ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা। কিন্তু সেই হিসাবে তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকেছেন মাত্র ১০ দিন। উল্টো ১০ দিনের মাথায় তিনি নিজেই নিয়ম ভেঙে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং আলোচনা সভায় প্রায় ২০ মিনিট বক্তব্য রাখেন। সেই আলোচনা সভায় বক্তব্যে তিনি বলেন, ১৫৫টি দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এ কারণে সরকার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর প্রোগ্রাম অনেক শর্ট করেছে, যাতে বেশি মানুষ জমায়েত না হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সকালে ফুল দিতে আসি। তখন অনেক গ্যাদারিং হয়ে যাচ্ছিল। আজ সারা দেশে যেভাবে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিল, এটা সীমিত আকারে হওয়ার কথা নয়।

সরকারি নির্দেশে এই প্রোগ্রাম সংক্ষিপ্ত। সীমিত আকারে অনুষ্ঠান, তাই আমি কাউকে বলি নাই। উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও সাহেব বলছেন, আপনাকে অনুষ্ঠানে থাকতে হবে। আমি একাই এসেছি।

স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, তিনি (এমপি মাদানী) এলাকায় আছেন শুনে দাওয়াত দিয়েছিলাম। তবে কবে সৌদি থেকে ফিরেছেন তা জানা ছিল না।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট:ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলায় করোনাভাইরাস পরীক্ষা এবং লোকজনকে কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দাঙ্গায় জড়িয়েছে হিন্দু ও মুসলমান সম্প্রদায়। এ সময় দোকান, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি করা হয়েছে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে বরা হয়, গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে নতুন করে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে। এর আগে গত রোববার প্রথম উত্তেজনা তৈরি হয়। তখন পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এখন পর্যন্ত মোট ১১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

হুগলির তেলেনিপাড়া এলাকায় কয়েকদিন আগে করোনাভাইরাস পরীক্ষার একটি শিবির করা হয়েছিল। পরীক্ষায় বেশ কয়েকজনের করোনা পজিটিভ আসে এবং ঘটনাচক্রে তারা সবাই মুসলমান।

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সংসদ সদস্য অর্জুন সিং এ ঘটনার একটি ভিডিও পোস্ট করে লেখেন, ‘ক্যাম্পটা মুসলমান প্রধান এলাকায় হয়েছিল, তাই স্বাভাবিকভাবেই পজিটিভ এলে মুসলমানদেরই হবে। কিন্তু সেটা নিয়ে হিন্দুদের একাংশ মুসলমানদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতে থাকে। মুসলমানরাই করোনা ছড়াচ্ছে বলে টিটকিরি দেওয়া হয়।’

কেউ যাতে গুজব ছড়িয়ে অশান্তি না বাড়াতে পারে, এ কারণে ওই অঞ্চলে ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে।

করোনা নিয়ে ভারতে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536