লাদাখে ভারত-চীনা সৈন্যদের মধ্যে উত্তেজনা

লাদাখে ভারত-চীনা সৈন্যদের মধ্যে উত্তেজনা

অনলাইন ডেস্ক: সীমান্তে ফের উত্তেজনা দেখা দিয়েছে ভারত ও চীনা সেনাবাহিনীর মধ্যে। কাশ্মির থেকে সম্প্রতি আলাদা করা লাদাখে দু পক্ষের জওয়ানরা পরস্পর হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। প্যাংগঙ লেকের কাছেই প্রায় সম্মুখসমরে অবতীর্ণ হয় দু দেশের বাহিনী।

সূত্রের মারফত জানা গেছে, বুধবার ভোরে পূর্ব লাদাখের ১৩৪ কিমি লম্বা প্যাংগঙ লেকের উত্তর তীরে এই ঘটনা ঘটে। এই লেকের দুই-তৃতীয়াংশই চীনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। লেকটি তিব্বত থেকে লাদাখ পর্যন্ত এসেছে।

সূত্র জানিয়েছে, ‘প্যাট্রলিঙের সময় পিপলস লিবারেশন আর্মির জওয়ানদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা বাঁধে ভারতীয় জওয়ানদের। ওই এলাকায় তাদের যেতে বাধা দেয় পাকিস্তানি সেনাসদস্যরা। এর থেকেই যুযুধান দুই সেনাবাহিনীর জওয়ানদের মধ্যে ঝামেলা ও হাতাহাতি শুরু হয়। দু দেশই ওই এলাকায় আরো বাহিনী পাঠায়। সন্ধ্যা পর্যন্ত এই উত্তেজনার পরিবেশ বজায় থাকে।’ পরে এর মিটমাট হয়।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, দ্বিপক্ষীয় চুক্তিগুলোকে সামনে রেখে ব্রিগেডিয়ার র্যাং কের অফিসারদের বৈঠকে দু দেশের বাহিনীর মধ্যে উত্তেজনা প্রশমিত হয়েছে। এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল ঠিক কোথা দিয়ে গেছে, তা নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে অনেক সময় এমন ঘটনা ঘটে। সীমান্ত কর্মীদের বৈঠক ও ফ্ল্যাগ মিটিঙের মাধ্যমে সেই সমস্যার সমাধান করা হয়।’

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দ্বিতীয় বৈঠকে সামিল হতে ভারত সফরে আসছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। সেই সময় অরুণাচলপ্রদেশে ‘ভীম বিজয়’ মহড়া চালাবে ভারতীয় সেনাবাহিনী। ডোকলাম দ্বন্দ্বের পর ২০১৮ সালের এপ্রিলে ইউহানে মোদি-জিনপিঙের প্রথম বৈঠক হয়েছিল। সূত্র : এই সময়

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট:ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলায় করোনাভাইরাস পরীক্ষা এবং লোকজনকে কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দাঙ্গায় জড়িয়েছে হিন্দু ও মুসলমান সম্প্রদায়। এ সময় দোকান, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি করা হয়েছে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে বরা হয়, গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে নতুন করে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে। এর আগে গত রোববার প্রথম উত্তেজনা তৈরি হয়। তখন পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এখন পর্যন্ত মোট ১১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

হুগলির তেলেনিপাড়া এলাকায় কয়েকদিন আগে করোনাভাইরাস পরীক্ষার একটি শিবির করা হয়েছিল। পরীক্ষায় বেশ কয়েকজনের করোনা পজিটিভ আসে এবং ঘটনাচক্রে তারা সবাই মুসলমান।

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সংসদ সদস্য অর্জুন সিং এ ঘটনার একটি ভিডিও পোস্ট করে লেখেন, ‘ক্যাম্পটা মুসলমান প্রধান এলাকায় হয়েছিল, তাই স্বাভাবিকভাবেই পজিটিভ এলে মুসলমানদেরই হবে। কিন্তু সেটা নিয়ে হিন্দুদের একাংশ মুসলমানদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতে থাকে। মুসলমানরাই করোনা ছড়াচ্ছে বলে টিটকিরি দেওয়া হয়।’

কেউ যাতে গুজব ছড়িয়ে অশান্তি না বাড়াতে পারে, এ কারণে ওই অঞ্চলে ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে।

করোনা নিয়ে ভারতে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, বাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বোমাবাজি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536