দিনাজপুরে গণহত্যার স্মৃতিফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল

দিনাজপুরে গণহত্যার স্মৃতিফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল

 

দিনাজপুর থেকে : ১৯৭১ সালের ১৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কাঁটাপাড়া, রাজবাটি, গুঞ্জাবাড়ি হয়ে দিনাজপুর শহরে প্রবেশকালে তাদের হাতে ঐসব এলাকার ২৫ জনের অধিক ব্যক্তি গণহত্যার শিকার হয়েছিলেন। নিহতদের মধ্যে ছিলেন হিন্দু, মুসলিম, নারী, পুরুষ, শিশু, কামার, কুমার, চাষী। গণহত্যায় নিহত সেই সব ব্যক্তিদের নামযুক্ত স্মৃতিফলক স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৮ বছর পর আজ ৯ সেপ্টেম্বর বিকাল ৪টায় রাজবাটীর সুখসাগরে উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো: আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এনডিসি। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি বঙ্গবন্ধু অধ্যাপক ড. মুনতাসীর মামুন।
গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্রের আয়োজনে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট কর্তৃক বাস্তবায়িত স্মৃতিফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ইতিহাস সম্মিলনী, দিনাজপুর এর সভাপতি ও দিনাজপুর সিটি কলেজের অধ্যক্ষ মো. মোজাম্মেল হক। অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো: আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এনডিসি বলেন,
সম্মানিত অতিথি ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি বঙ্গবন্ধু অধ্যাপক ড. মুনতাসীর মামুন বলেন,

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ জাদুঘর ট্রাস্টের ট্রাস্টি ড. চৌধুরী শহীদ কাদের। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইতিহাস সম্মিলনী, দিনাজপুর এর সাধারণ সম্পাদক ও দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রধান ছায়েদ আলী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রাজবাটি গণহত্যার গবেষক বিধান দত্ত।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা বিষয়ে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ জাদুঘর ট্রাস্ট কর্তৃক সম্প্রতি দিনাজপুর জেলায় জরিপ ও গবেষণা কর্ম পরিচালিত হয়েছে। এই জরিপ ও গবেষণায় দিনাজপুর জেলায় অনেক নতুন নতুন গণহত্যা ও বধ্যভূমির সন্ধান পাওয়া গেছে। রাজবাটির গণহত্যা সেরকমই একটি ঘটনা যা সাধারন মানুষ ভুলে গিয়েছিল।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536