লালমনিরহাটে চিকিৎসা সেবায় নজির স্থাপন করে চলেছে আদিতমারী উপজেলা হাসপাতাল !

রংপুর
শেয়ার করুন
সুমন ইসলাম বাবু,লালমনিরহাট :২ লক্ষাধিক লোকের সেবার জন্য নির্মিত আদিতমারী হাসপাতালের চিত্র আসতে আসতে বদলাতে শুরু করেছে। এক সময় নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত ছিল হাসপাতালটি। বর্তমানে হাসপাতালটি চিকিৎসা সেবায় অনন্য নজির স্থাপন করে চলেছেন। সারাদেশে জাতীয় পর্যায়ে লালমনিরহাটের আদিতমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৩৬ তম ও রংপুর বিভাগের মধ্যে ২য় পর্যায়ে জায়গা করে নিয়েছেন। আর অসম্ভব কাজটি সম্ভব হয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ তৌফিক আহমেদ যোগদানের পর থেকেই। তিন চলতি বছরের ১ লা মার্চ হাসপাতালের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানাগেছে, আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডাঃ তৌফিক আহমেদ অত্র হাসপাতালে যোগদানের পূর্বে হাসপাতালটি নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত ছিলেন। ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটির জনবল দিয়ে চলে আসছে ৫০ শয্যার কার্যক্রম। তিনি যোগদানের পর পরই উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেন সারাদেশের মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে একটি মডেল হাসপাতাল গড়ার। আর এ স্বপ্ন নিয়ে তিনিসহ তার একটি টিম কাজ শুরু করেন। শুরুতেই তিনি ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্য সহায়ক জনবলের সেবাপ্রদানকালে হাসপাতালে অবস্থান নিশ্চিতকরণ। পুরো হাসপাতাল ক্যাম্পাস সিসিটিভির মাধ্যমে বহঃবিভাগ, অন্তবিভাগ ও জরুরী বিভাগসহ সার্বক্ষণিক তদারকি। সেই সাথে তিনি একটি ব্যতিক্রম উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেন। আর সেটি হলোঃ সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে ওয়ারলেস সেট প্রদান করে সার্বক্ষণিক অন্ত যোগাযোগ এর মাধ্যমে সমন্বিত সেবা প্রদান করা। আর এ কারণে দ্রুত সময়ে সেবা গ্রহিতারা সেবা পাচ্ছেন হাসপাতালটিতে।
এদিকে হাসপাতালটিতে বর্তমানে রোগিদের জন্য উন্নতমানের খাবার সরবরাহ ও বহিঃবিভাগে শতভাগ ওষুধ নিশ্চিতকরণসহ ভর্তিকৃত রোগিদের ওষুধ নিশ্চিতকরণ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, এ কর্মকর্তা যোগদানের পর সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এম,পির সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে দ্রুত সময়ে হাসপাতালে নতুন ও অত্যাধুনিক এসি এ্যাম্বুলেন্স আনয়ন করেন। ফলে গরীব ও অসহায় রোগিদের দ্রুত সময়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র নেয়া সম্ভব হচ্ছে। হাসপাতালে নতুন এক্সরে মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। খুব শীর্ঘ্রই এর কার্যক্রম শুরু করা হবে। এটি চালু হলে অল্প সময়ে এখানকার রোগিরা আরও সেবা পাবেন বলে আশাবাদী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে হাসপাতালটিতে যক্ষা রোগ সনাক্তকরণে সর্বাধুনিক মেশিন জিন এক্সপার্ট মেশিন স্থাপন করে চালুকরহ করা হয়েছে। এছাড়াও নতুন ২ জন মিডওয়াইফ পদায়ন করে সার্বক্ষণিক উন্নতমানের ডেলিগারী সেবা প্রদান করা হচ্ছে হাসপাতালটিতে।
কোভিড-১৯ মোকাবেলার জন্য আলাদা ওয়ার্ড প্রস্তুতকরণ ও সার্বক্ষণিক অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে এখানে।গাইনী ও শিশুসেবা যুগোপযোগীকরণের ক্ষেত্রে বর্তমানে একটি অত্যাধুনিক গাইনী ও শিশু ওয়ার্ড এর নির্মাণ প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।
হাসপাতালের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য এ কর্মকর্তা যোগদানের পর রাত্রীকালীন আলোকসজ্জা চালু করেছেন। এক সময়ে হাসপাতালটি রাতে ভূতড়ে অবস্থা বিরাজ করলেও বর্তমানে আলোকসজ্জা চালু হওয়ায় পাল্টে গেছে এর দৃশ্যপট।
আদিতমারী উপজেলা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ তৌফিক আহমেদ বলেন, উপজেলা হাসপাতালকে মডেল হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে তিনিসহ তার টিম কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি এজন্য সকলের সহযোগিতাও কামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *