লালমনিরহাটে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারীর বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

Uncategorized
শেয়ার করুন
সুমন ইসলাম বাবু,লালমনিরহাট :লালমনিরহাটের আদিতমারীতে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহনের বিরুদ্ধে তার অফিসের এক মাঠ সহকারী সুচিত্রা রাণীকে ভয়ভীতি ও হুমকির প্রদানের অভিযোগ উঠেছে।
মাঠ সহকারী সুচিত্রা রাণী আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়নের কুমড়িরহাট এলাকার ধীরেন্দ্রনাথ রায়ের মেয়ে। আর জ্ঞানদা মোহন রায়ও একই উপজেলার একই গ্রামের ধীরেন্দ্রনাথ রায়ের ছেলে।
হুমকির ঘটনায় শুক্রবার ৪ সেপ্টেম্বর) বিকালে ওই অফিসে কর্মরত মাঠ সহকারী সুচিত্রা রাণী জ্ঞানদা মোহনের বিরুদ্ধে আদিতমারী থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেছেন।
এদিকে তার বিরুদ্ধে নামে বেনামে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ভুয়া লোন আত্নসাতের অভিযোগও উঠেছে।
জিডি সুত্রে জানাগেছে, সুচিত্রা রাণী গত ২০১৯ সালে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পে আদিতমারী অফিসে মাঠ সহকারী পদে যোগদান করেন। তিনি জিডিতে উল্লেখ করেন, একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহন রায় বিভিন্ন সময় বিধিবহির্ভূতভাবে কিছু লোকের নামে লোন উত্তোলন করেন। তবে অভিযোগ রয়েছে,এসব লোকজন আদৌ জানেন না তাদের নামে লোন উত্তোলন করা হয়েছে। বিষয়টি জানাজানি হলে লোকজন গত বৃহস্পতিবার আদিতমারী পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে উপস্থিত হয়ে তাদের নামে কেন লোন উত্তোলন করা হয়েছে এর বিচার দাবী করেন।
পরবর্তীতে ওই দিনই প্রাথমিক তদন্তে ৬ জনের নামে এক লক্ষ ৬ হাজার টাকা লোন বিতরণে অনিয়মের বিষয়টি প্রমাণিত হয়। পরে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ম্যানেজারসহ একাধিক কর্মকর্তা আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সমুদয় টাকা মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহনকে জমা দেয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।
এদিকে এ ঘটনার জের ধরে মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহন আরেক মাঠ সহকারী সুচিত্রা রাণীর উপর মনক্ষুন্ন হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে কিভাবে চাকুরী কর তা দেখে নেয়ার হুমকি প্রদান করেন। এছাড়াও তাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে বলে জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন।
একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারী সুচিত্রা রাণী মোবাইল ফোনে বলেন, মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহন বিধিবহির্ভূতভাবে অন্যের নামে লোন বিতরণ দেখিয়ে আত্নসাত করেন। তিনি আরো বলেন, বিষয়টি জানাজানি হলে এর দায়ভার আমার উপর চাপানোর চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে তিনি এ হুমকি প্রদান করেন। নিরাপত্তার কারণে তার বিরুদ্ধে সাধারন ডায়রী করেছি।
একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের আদিতমারী অফিসের মাঠ সহকারী জ্ঞানদা মোহন হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, অফিসের টার্গেট পূরণ করতে গিয়ে সমিতির ম্যানেজার লোন বিতরণে কিছু অনিয়ম করেছেন। তবে তদন্ত কমিটি আগামী ৭ দিনের মধ্যে সমুদয় টাকা জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বলে তিনি স্বীকার করেন।
আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *