আখাউড়ায় কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপকের বিদায় সংবর্ধনা

Al amin Islam
প্রকাশিত ডিসেম্বর ২, ২০২১
আখাউড়ায় কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপকের বিদায় সংবর্ধনা
Spread the love

হাসান মাহমুদ পারভেজঃ

চোখের জল, ফুলেল শুভেচ্ছা আর সহকর্মীদের হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসায়  সিক্ত হয়ে  কর্মজীবনের ইতি টানলেন বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক আখাউড়া শাখার ব্যবস্থাপক কামাল আহাম্মদ খান। কর্মজীবনের দীর্ঘ প্রায় ৩৮ বছর সততা, দক্ষতা, নিষ্ঠা ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে কর্মজীবন শেষ করেছেন তিনি। বুধবার বিকালে কর্ম দিবসের শেষ  দিনে প্রিয় কর্মস্থলে  এক অনাড়ম্বর বিদায়  সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।
শাখার ২য় কর্মকর্তা আশরাফুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে  অনুষ্ঠানে বিদায়ী ব্যবস্থাপক কামাল আহাম্মদ খানের বর্ণাঢ্য কর্মজীবন, সুন্দর জীবনাচার    তুলে ধরে বক্তব্য  রাখেন
সম্মানিত অতিথি আখাউড়া পৌর সভার প্যানেল মেয়র-১ কাউন্সিলর মোঃ বাবুল মিয়া,
অগ্রণী ব্যাংক আখাউড়া শাখার ব্যবস্থাপক ও এসপিও হাছান সাইফুর রহমান, শাখার সিনিয়র অফিসার  মোঃ শেখ ফখরুজ্জামান, ডাটা এন্ট্রি/ কন্ট্রোল অপারেটর মোসাঃ রিনা বেগম, ব্যাংক কর্মকর্তা জামিল আহমেদ, শাহ আলম সাবেক কর্মকর্তা সোলেমান ভূইয়া, ইকবাল আহাম্মদ খান, কর্মকর্তা জাহিদুল হক, কসবা- আখাউড়া টেলিভিশন  সাংবাদিক ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক, আখাউড়া টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সিনিয়র সভাপতি, দৈনিক গণকন্ঠের আখাউড়া প্রতিনিধি, বিশিষ্ট সার্ভেয়ার আমিন ও দলিল লেখক সাংবাদিক বাদল আহাম্মদ খান  প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক হান্নান খাদেম, টেলিভিশন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক জালাল হোসেন মামুন, সাংবাদিক হাসান মাহমুদ পারভেজ, সিনিয়র দলিল লেখক জসিম সরকার প্রমুখ।
প্রত্যেক বক্তা বলেন কামাল আহাম্মদ খান একজন বিনয়ী, ভদ্র, নিরহংকারী, হাস্যোজ্জল মানুষ।  দায়িত্বের প্রতি শতভাগ আন্তরিক, নিষ্ঠাবান, কঠোর পরিশ্রমি, সহকর্মীদের কাছে ছিলেন বড় ভাই, একজন সত্যিকারের বন্ধুর মতো। তিনি একজন উঁচুমানের দক্ষ ব্যাংক কর্মকর্তা ছিলেন। সমাজের প্রতিটি শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে তাঁর সুসম্পর্ক ছিল।
ব্যাংকের প্রতিটি কর্কর্মতা কর্মচারির বক্তৃতাকালে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। তাদের কথায় ফুটে উঠে কামাল আহাম্মদ খানের প্রতি হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা, অসীম শ্রদ্ধা।  আপনজনকে হারিয়ে মানুষ যে দুঃখ পায়, বিদায়ী ব্যবস্থাপককে হারিয়ে তারা  ঠিক সেরকম কস্টের অনুভূতি প্রকাশ করেন। প্রতিটি কর্মকর্তা কর্মচারির চোখ ছল ছল করে উঠে।
কামাল আহাম্মদ খান দিন রাত কঠোর পরিশ্রম করে
আখাউড়া শাখাটি তিল তিল করে ভালো অবস্থানে দাঁড় করিয়েছেন। জেলা ২৮ টি শাখার মধ্যে আখাউড়া শাখার অবস্থান সবচেয়ে ভালো। এটা কামাল আহাম্মদ খানের অবদান। এজন্য তারা তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
বক্তারা তার অবসর জীবনের সুখ শান্তি কামনা করেন।
বিদায়ী ব্যবস্থাপক কামাল আহাম্মদ খান সকল সহকর্মীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, একটি ভাল টিম পেয়েছিলেন বলেই তিনি সুন্দর ভাবে কাজ করতে পেরেছেন।   সহকর্মীদের সহযোগিতার জন্যই তিনি উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে কাজ করতে পেরেছেন। এজন্য তিনি সকলকে ধন্যবাদ জানান।
দীর্ঘ দিনের সহকর্মী আর প্রিয় কর্মস্থল ছেড়ে যাওয়ার প্রাক্কালে তাঁর মন কেঁদে উঠে। তিনি ব্যাথাতুর হয়ে পড়েন। বার বার অফিসের  দিকে তাকান, কি যেন হারিয়ে ফেলেছেন, শেষ বারের মতো সবকিছু প্রাণ ভরে দেখে নেন।
পরে বিদায়ী ব্যবস্থাপককে ক্রেস্ট ও অন্যান্য উপহার দেওয়া হয়।